মালমো থেকে স্টকহোম, এ্যা জার্নি বাই কার [ষষ্ঠ পর্ব] – ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

ঊর্ধ্ব শ্বাসে ছুটে চলা ঘোড়া দেখতে আমার খুব ভালো লাগে। আমার বাচ্চাদেরও খুব শখ ঘোড়ায় চড়ার। বড়জন ৫ মাসের একটি কোর্স করেছে ঘোড়ায় চড়ার উপর। মেঝজনও আবদার করছে, সেও ঘোড়ায় চড়া শিখতে চায়। আমি উত্তর দেই, হবে ইন শা আল্লাহ! ঘোড়ার পীঠে সওয়ারী যদি সত্যের সৈনিক হয় তখন সে পথচলা হয়ে উঠে আরো রোমাঞ্চকর।

মালমো টু স্টকহোম এ্যা জার্নি বাই কার [পঞ্চম পর্ব]- ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

একেক করে শহর ও বন্দর পেরিয়ে গন্তব্যের দিকে ছুটে চলছি। বাচ্চারা কখনো ঘুমাচ্ছে, কখনো আবার জেগে উঠে আশেপাশে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করছে, এটা কি, ওটা কি? ইয়ংশপিং পেরিয়ে লিংশপিং-এর দিকে গাড়ি ছুটে চলেছে। ধারণা করা হয় যে, প্রাচীনকাল থেকে চলে আসা ব্যবসা বানিজ্যের কারণে সাগর বা লেকের তীরবর্তী শহরগুলোর নাম শপিং দিয়ে রাখা হয়েছে। পৃথিবীর বড় বড় শহরগুলো গড়ে উঠেছে সাগর ও নদীতীরবর্তী এলাকায়। পণ্য বহন এবং যোগাযোগের সুবিধার্থে পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি শহর তাই জলপথকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠে।

মালমো থেকে স্টকহোম, এ্যা জার্নি বাই কার [৪র্থ পর্ব]- ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

গ্রেনাকে বিদায় জানিয়ে ছুটে চললাম গন্তব্যের দিকে। ধীরে ধীরে গতি বেড়ে চলল। ৩০ থেকে ৫০, ৫০ থেকে ৭০, ৭০ থেকে ৯০ এভাবে। গাড়ির হাব্রিডের সিস্টেমের দিকে লক্ষ্য করছিলাম। গতি বাড়তে থাকলে হাইব্রিড থেকে অকটেনে চলে যাচ্ছে। হাইব্রিডে চললে আমার কোনও খরচ হয় না বললেই বলে। তখন গাড়ি বলে মূলত ব্যাটারির মাধ্যমে।

মালমো থেকে স্টকহোম এ্যা জার্নি বাই কার [তৃতীয় পর্ব]- ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

২০২০-এর মডেলের গাড়ি। প্রযুক্তির উৎকর্ষ পুরোপুরি ব্যবহৃত হয়েছে এই মডেলে। চালকবিহীন গাড়ির একধাপ কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। কেবল সাবধানতার জন্য স্টিয়ারিং-এ হাত রাখা। এক্সেলারেটর থেকে পা তুলে নিয়েছি সেই শুরু থেকেই। তবে যে কোনও পরিস্থিতিতে নিয়ন্ত্রণ রাখতে একটু সজাগ থাকা চাই। সে ধরণের সাবধানতা অবলম্বন করে পথ চলছি।

মালমো থেকে স্টকহোম,এ্যা জার্নি বাই কার [২য় পর্ব]- ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

হাই-ওয়েতে নেমেই গাড়ি পুরো অটো করে দিলাম। ক্রুজ কন্ট্রোলার অন করে দিলাম। যাতে স্পীড বাড়ানো বা কমানোর জন্য আমাকে ভাবতে না হয়। এ বিশেষ সিস্টেম নিজে থেকেই সামনের গাড়ির সাথে দূরত্ব বজায় রেখে স্পীড নিয়ন্ত্রণ করে।

মালমো থেকে স্টকহোম, এ্যা জার্নি বাই কার [প্রথম পর্ব]- ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

দূরত্ব প্রায় ৭০০ কিলোমিটার। উল্টো আসতেও একই দূরত্ব। সাথে ঘোরাঘুরি। সব মিলিয়ে প্রায় ২ হাজার কিলোমিটারের পথ। একক জার্নি হিসেবে এটাই আমার জীবনের সবচেয়ে লম্বা কার ড্রাইভ।

মওলা আলী রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু কি মদ স্পর্শ করেছেন? – ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।“মদ খেয়ে মাতাল হয়ে নামাযে সূরা আল-কাফিরুনে পেঁচ লাগিয়ে দিয়েছে.. ” নাউজুবিল্লাহ। এরকম বেয়াদবিপূর্ণ বর্ণনা কোনও হাদিসে নেই। মদপানের কিছু ঘটনার কথা হাদিসে আছে। তবে সব বর্ণনা সত্য নয়। মিথ্যা হাদিস বর্ণনায় উমাইয়্যা, খারেজী এবং শিয়ারা সমানভাবে অবদান রেখেছে। অনেক মিথ্যা কথাও সহীহ সনদে বর্ণিত হয়েছে। কোনও … Read more

প্রসংগ মীলাদুন্নাবী উৎযাপনঃ ইসলামের প্রতিটি আচার-অনুষ্ঠানই কোন না কোন নবী-রাসূলের স্মৃতি, ঈদে মীলাদুন্নাবী এর ব্যতিক্রম নয়। – ডঃ আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

ইসলামের প্রতিটি আচার-অনুষ্ঠানই কোন না কোন নবী-রাসূলের স্মৃতি, ঈদে মীলাদুন্নাবী এর ব্যতিক্রম নয়। ঈদে মীলাদুন্নাবী পালনের দলিল ভিত্তিক আলোচনা

নজদীপন্থীদের এজিদ বন্দনার আসল রহস্য! – ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

এজিদের সমালোচনা করলে, কারবালার ঘটনার জন্য দায়ীদের অভিশাপ দিলে এদের বাপদাদাদের উপর অভিশাপ লাগবে। কাজেই কৌশলে আশুরাকে অন্য খাতে প্রবাহিত করে ইতিহাসকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাচ্ছে এই নফস-পূজারীরা।

সাহাবাগণ নক্ষত্রসম, তাঁদের সম্মান ও মর্যাদা [তিন] – ডক্টর আব্দুল বাতেন মিয়াজী

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

সাহাবা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহুম আজমাইন হলেন আকাশের নক্ষত্রের মতো। নক্ষত্র যেমন জ্বলজ্বল করে জ্বলে রাতের আঁধারে সমুদ্রে ভেসে চলা নাবিককে পথে দেখায়, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াআলিহী ওয়াসাল্লামের একেকজন সাহাবা ঠিক তেমনি। ফেতনার ডুবে যাওয়া উম্মতকে পথ দেখান তাঁরা। তাঁদের অনুসরণ ডুবে যাওয়া থেকে রক্ষা করে। তাঁরা সত্যের মাপকাঠি।