আমার ক্যামেরায় মক্কা মুকাররামা-মাদীনা মুনাওয়ারা-তায়েফ

পোষ্টটি অন্যকে পড়ার সুযোগ করে দিতে শেয়ার করুন প্লিজ।

আমার ক্যামেরায় মক্কা মুকাররামা-মাদীনা মুনাওয়ারা-তায়েফ

“আমি যদি আরব হতাম, মদীনারই পথ
সেই পথে মোর চলে যেতেন নূরনবী (দঃ) হযরত!”

মদীনার পথে হাঁটতে হাঁটতে একথাটিই বারবার মনে বাজছিল। আহা, এই সেই পথ যেখানে আমাদের প্রাণ প্রিয় রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর সেরা সাথীদের নিয়ে হেঁটে বেড়িয়েছেন। এই পথ দিয়েই নবীজি (দঃ) এর কাছে এসেছেন বিভিন্ন দেশের রাজাবাদশাগণ। এখানেই খেলা করতেন তাঁর প্রাণপ্রিয় দৌহিত্রদ্বয় হযরত হাসান ও হুসাইন রাদিয়াল্লাহু আনহুমা। এই পথেই মা ফাতেমা রাদিয়াল্লাহু আনহার পদধূলি লেগে আছে। এখান থেকেই মুসলিম বিশ্ব শাসন করেছেন হযরত আবু বকর, হযরত উমার ফারুক এবং হযরত উসমান রাদিয়াল্লাউ আনহুম। এই সবুজ গম্বুজের নিচেই শায়িত সেই দু’জাহানের বাদশাহ, যার পায়ের তলায় দুনিয়ার বাদশাহ-ফকির সবাই লুটিয়ে পড়ে। এই গম্বুজের নিচে আরও আছেন তাঁর দুই সেরা সাথী হযরত আবু বকর ও হযরত উমার ফারুক রাদিয়াল্লাহু আনহুমা।

এই কথাগুলোই আমাদের জাতীয় কবি তাঁর গানে ও কবিতায় কত আহাজারির মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলেছেন। আল্লাহ তাঁকে উত্তম প্রতিদান দান করুণ!

মনটা ভারাক্রান্ত হয়ে যায় তখন যখনই ভাবি ছবিতে ওই সবুজ গম্বুজের নীচের তিনটি রওজা মুবারক ব্যতীত অন্য সব পবিত্র কবরগুলো সৌদি নজদি ওহাবীরা বুলডোজার দিয়ে মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে। ইসলামের কোন ইতিহাস তারা বহাল রাখতে নারাজ। তাদের চোখে সব কিছুতে কেবল শিরক আর শিরক। বিদাত আর বিদাত। প্রাণপ্রিয় নবী (দঃ) কে ডাক দিলেও শিরক হয়ে যায়। কাজেই সব শিরক মুছে ফেলে তারা কায়েম করতে চায় এমন এক মুসলিম বিশ্ব যেখানে কোন ইতিহাস থাকবেনা। থাকবে কেবল তাদের মনগড়া কিছু মিথ্যা। হে আল্লাহ আপনি আপনার ইসলামকে এবং ইসলামের ঐতিহ্যগুলোকে এইসব দুশমনদের হাত থেকে রক্ষা করুণ। আমাদেরকে ফিরিয়ে দিন সেই প্রাণপ্রিয় ভুমি। সেখানে আবাদ হবে সলফে সালেহীনের সত্যিকারের আদর্শ। সব মিথ্যার অবসান হয়ে সত্যের শিখা জ্বলে উঠবে। পতপত করে উড়বে মুসলমানের জয়-নিশান। আমীন!

পোষ্টটি ভালো লেগে থাকলে আপনার মূল্যবান মতামত জানান প্লিজ!
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Comment